মঙ্গলবার, ২৮ জুন ২০২২, ০৭:১৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
পদ্মা সেতুতে স্পিড গান ও সিসিটিভি স্থাপনের পর মোটরসাইকেল চলাচলের সিদ্ধান্ত না জানিয়ে বিএনপির কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত করায় ক্ষোভ প্রকাশ। জমি নিয়ে বিরোধে একই পরিবারের চারজনকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে জখম ফেরী সার্ভিস চালুর উদ্যোগ গ্রহণ বিচ্ছিন্ন মনপুরা দ্বীপ যুক্ত হচ্ছে মূল খন্ডের সাথে সাপাহারে পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষ্যে আনন্দ র‍্যালীতে হাজারো মানুষের ঢল গলাচিপায় জেলেদের বকনা বাছুর ও জাল বিরতণ ড্রেজার দিয়ে নদী থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করায় ৩ জনকে কারাদণ্ড প্রদান মাদারীপুরের শিবচরে পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী জনসমাবেশে জনতার ঢল নেমেছে। উন্নত মানসিকতা সততা দেশপ্রেম সুশিক্ষাই পারে দেশকে সমৃদ্ধি করতে এস এম শাহজাদা (এমপি) পদ্মা সেতুতে দাঁড়িয়ে ছবি তোলা নিষেধ

‘পদ্মাসেতু নির্মাণে প্রধানমন্ত্রী ২০ হাজার কোটি টাকা সাশ্রয় করেছেন’

পদ্মাসেতু নির্মাণে প্রধানমন্ত্রী অন্তত ২০ হাজার কোটি টাকা সাশ্রয় করেছেন বলে দাবি করেছেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

বুধবার (২২ জুন) দুপুরে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউটে এক সেমিনারে তিনি বলেন, হার্ডিঞ্জ ব্রিজ নির্মাণের সময় ১০ গ্রাম স্বর্ণের মূল্য ছিল ১৫ টাকা। ১৯১০-১৫ সালে হার্ডিঞ্জ ব্রিজ নির্মাণে খরচ ছিল ৪ কোটি রুপির বেশি। সেই অর্থে, হার্ডিঞ্জ ব্রিজ নির্মাণ করতে এখন লাগতো ১৭ হাজার ৩৫ কোটি টাকা। আর যদি পদ্মাসেতুর দৈর্ঘ্যের সমান হার্ডিঞ্জ ব্রিজ নির্মাণ করতে হতো, তবে এখন লাগতো ৫৮ হাজার কোটি টাকা। তাও শুধু রেলব্রিজ।

তথ্যমন্ত্রী আরও জানান, মূল সেতু নির্মাণে খরচ হয়েছে ১১ হাজার ৯৩৮ কোটি টাকা। নদী শাসনে ৮ হাজার কোটি টাকা এবং ভূমি অধিগ্রহণে লেগেছে ২৬৯৮ কোটি টাকা। সর্বমোট, ২৮ হাজার কোটি টাকার একটু বেশি খরচ হয়েছে।

এ সময় তথ্যমন্ত্রী বলেন, বিএনপির তো লজ্জায় মাথা হেট হয়ে গেছে। তবু বিভ্রান্তি ছড়াতে ভুলছে না। মির্জা ফখরুল বলেছেন, এই সেতু কি কার‌ও বাপের সেতু? না, এটি দেশের জনগণের জন্য তৈরি করা হয়েছে। কাজেই এই সেতু মির্জা ফখরুলের জন্যেও। কিন্তু যারা এক সময় বলেছিল এই সেতুতে উঠবেন না, তাদের এই সেতুতে ওঠার অধিকার আছে কিনা তা ভেবে দেখা উচিত। তবে তারা অবশ্য‌ই এই সেতুতে উঠবেন, কিন্তু তার আগে তাদের বক্তব্যের জন্য জাতির কাছে ক্ষমা চেয়ে নেবেন।



আমাদের ফেসবুক পেজ
ব্রেকিং নিউজ