বাকেরগঞ্জে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে বসত করে অগ্নিসংযোগ। - সময়কাল

বাকেরগঞ্জে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে বসত করে অগ্নিসংযোগ।


admin-abbas প্রকাশের সময় : মে ২০, ২০২২, ৮:২১ অপরাহ্ণ / ৮৩
বাকেরগঞ্জে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে বসত করে অগ্নিসংযোগ।

 

নজরুল ইসলাম আলীমঃ
বাকেরগঞ্জ উপজেলার ১৪ নং নিয়ামতি ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ড পূর্ব কৃষ্ণনগরে মৃধা বাড়িতে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে বসত করে অগ্নিসংযোগের অভিযোগ পাওয়া গেছে। অভিযোগ সূত্রে জানা যায় যে, উপজেলার নিয়ামতি ইউনিয়নের পূর্ব কৃষ্ণনগর নিবাসী তানজের শরীফের পুত্র মোঃ কালাম শরীফের সাথে একই গ্রামের মৃত হেলাল উদ্দিন মৃধার সাথে জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলিয়া আসতেছিল। তারই জের ধরে গত ১৯শে মে রোজ বৃহস্পতিবার রাত আনুমানিক ১১ঃ৩০ মিনিটের সময় ঢাকা বিমানবন্দর থানার পুলিশ কনস্টেবল কালাম শরীফের (যার কনস্টেবল নাম্বার-২১১১৪) যোগসাজশে তার বখাটে পুত্র রাহাত শরীফ, হারুন মোল্লার বখাটে পুত্র মোঃ ফয়সাল মোল্লা, ফোরকান মৃধার বখাটে পুত্র মোঃ নাঈম মৃধা,মৃত দলিল উদ্দিন মৃধার পুত্র ফোরকান মৃধা,কালাম শরীফের স্ত্রী মোসাঃ রুমা সহ অজ্ঞাত নামা ২ জন ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীদের নিয়ে পূর্বপরিকল্পিতভাবে বিল্ডিং এর বাহির থেকে ছিটকানি আটকে দিয়ে আগুনে পুড়িয়ে মারার উদ্দেশ্যে আলী আকবরের বসত ঘরে অগ্নিসংযোগ করে। ওই সময়ে আলী আকবরের তার বাড়ির দেখাশোনা করার জন্য দায়িত্বে নিয়োজিত থাকা শ্যালক মোঃ আনোয়ার হোসেন ও তার স্ত্রী পিয়ারা বেগম আলী আকবরের বিল্ডিং এর ঘরে ঘুমন্ত অবস্থায় ছিলেন।একপর্যায়ে আনোয়ার হোসেন মীর ও তার স্ত্রী পিয়ারা বেগম জ্বলন্ত আগুনের ফুলকানী দেখে বিল্ডিং এর দোতালার ছাদে উঠে উক্ত সন্ত্রাসীদের দেখে ডাক চিৎকার করিলে তাদের ডাক চিৎকারে স্থানীয়রা এসে বিল্ডিংয়ের ছিটকানি খুলে উদ্ধার করে এক ঘন্টা সময় ধরে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। এতে ঘর মালিক আলী আকবরের আনুমানিক ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয় বলে জানান।এছাড়াও পুলিশ কনস্টেবল কালাম শরীফের বখাটে পুত্র রাহাত শরীফের বিরুদ্ধে রয়েছে নানান ধরনের কিসিমের অপরাধের অভিযোগ। নাম প্রকাশ করার না শর্তে একাধিক এলাকাবাসী জানান,দীর্ঘদিন যাবৎ রাহাত তার পিতার সুজাকি জিক্সার নামের একটি বাইকে পুলিশের স্টিকার লাগিয়ে ইয়াবা ক্রয়-বিক্রয় করিয়া আসিতেছে।মাঝে মাঝে বাকেরগঞ্জ থানা পুলিশ, টহল পুলিশ ও ট্রাফিক পুলিশ তাহার নিকট পরিচয় জানতে চাইলে তিনি একজন পুলিশের পুত্র পরিচয় দিয়ে পার পেয়ে যান। সূত্র আরও জানায় পুলিশ কনস্টেবল এর স্ত্রী রুমা বেগম আলী আকবর ভোগদখলীয় রেকর্ডীয় সম্পত্তি জোরপূর্বক ভাবে দখল করতে গেলে ভুক্তভোগী আলী আকবর বিষয়টি বাকেরগঞ্জ থানা পুলিশকে অবহিত করিলে বাকেরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আলাউদ্দিন মিলন ঘটনার সত্যতা যাচাইয়ের জন্য বাকেরগঞ্জ থানার এসআই মোঃ শামীম ও এ.এস.আই রবিউল ইসলামকে ঘটনাস্থলে পাঠালে কনস্টেবল কালাম শরীফের স্ত্রী মোসাঃ রুমা পুলিশ বিদ্বেষী হয়ে তাদের সাথে অসদাচরণ করেন।এমনকি তিনি এ.এস.আই রবিউল ইসলামের বিরুদ্ধে বরিশাল জেলা পুলিশ সুপারের নিকট মিথ্যা অভিযোগ দেন বলে গোপন সূত্রে জানা যায়। এছাড়াও আলী আকবর অভিযোগ করে জানান, রুমা বেগম ও তার ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসী দল এতটাই বেপরোয়া যে, তাদের ভয়ে আগুনে পোড়া ঘরটি দেখতে পর্যন্ত যেতে পারে নায়। তাই তিনি এবং তার পরিবারবর্গের জীবনের নিরাপত্তার জন্য র‌্যাব,পুলিশ সহ সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের দৃষ্টি কামনা করেন।(চলবে)

ব্রেকিং নিউজ